শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

ত্বক ফর্সা করার ঘরোয়া উপায়প্রিয় পাঠক ও বন্ধুগণ, শীতকাল এলেই আমাদের সকলের ত্বক মলিন হয়ে পড়ে। এই মলিন তকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য আমরা সকলেই নানা রকমের উপায় খুঁজতে থাকি। কিন্তু আমরা অনেকেই শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় গুলো সম্পর্কে খুব একটা জানি না। আপনাদের সকলের কথা চিন্তা করে আমি আজকে আমার এই আর্টিকেলে শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়

তাই আপনারা যদি শীতে ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধির উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে অবশ্যই আমার এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আমি আশা রাখছি যে, আমার এই আর্টিকেলটি পড়লে আপনারা এই বিষয়ে অনেক তথ্যই জানতে পারবেন।

পোস্ট সূচিপত্রঃশীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

ভূমিকা

শীত পড়লেই আমাদের মুখের ও শরীরের ত্বকের ময়েশ্চারাইজ কমে যায়। যার ফলে ত্বকের বিশেষ ও অতিরিক্ত যত্ন নিতে হয়। শীতকালে ত্বকের যত্ন নেওয়াটা বেশ চ্যালেঞ্জিং বিষয় হয়ে পড়ে। এ সময় বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম থাকায় আমাদের ত্বক, ঠোঁট, পায়ের গোড়ালি ইত্যাদি অংশ ফেটে যায়। যার ফলে আমাদের ত্বকের সৌন্দর্য ও উজ্জ্বলতা অনেক গুনে নষ্ট হয়ে যায়। শীতকালে ত্বকের এই সৌন্দর্য ও উজ্জ্বলতা পুনরায় ফিরিয়ে আনতে কিছু যত্ন রয়েছে যা আমরা প্রয়োগ করতে পারি।

আরও পড়ুনঃ মুখের কালো দাগ দূর করার উপায়

আজকে এই আর্টিকেলে শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির উপায়, শীতকালে ত্বক ফর্সা করার উপায়, শীতে কি খেলে গায়ের রং উজ্জ্বল হবে এবং ত্বকে ব্যবহারের কিছু ক্রিম ও বডি লোশনের নাম সম্পর্কে জানব। তো চলুন কথা না বাড়িয়ে এই আর্টিকেলটি পড়া শুরু করা যাক।

শীতকালে ত্বক ফর্সা করার উপায়

শীতকালে আমাদের ত্বক অত্যন্ত রুক্ষ হয়ে যায়। এই রুক্ষতার কারণে আমাদের ত্বক খসখসে ও প্রাণহীন হয়ে পড়ে। এর ফলে শীতকালে আমাদের ত্বক বেশি কালো দেখায়। শীতকালে এই কালো দাগ দূর করে ত্বক ফর্সা করার উপায় গুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

  • শীতকালে ত্বকের ময়শ্চরাইজড ধরে রাখা অত্যন্ত জরুরী। নারকেল তেল, ক্যাস্টর অয়েল, অলিভ অয়েল, লোশন ইত্যাদি ময়শ্চরাইজার হিসেবে ব্যবহার করলে, ত্বকের খসখসে ভাব দূর হয়ে যায় এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।
  • সাধারণত শীতকালে আমরা অনেকেই কম পানি পান করি। পানি কম পান করার কারণে আমাদের শরীরের পানির ঘাটতি দেখা দেয়, যার ফলে আমাদের শরীরের টিস্যু শুকিয়ে যায়। যার প্রভাব আমাদের ত্বকের উপরে পড়ে। এজন্য শীতকালে বেশি বেশি পানি পান করতে হবে।
  • শীতকালে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে গোটা মুখে ক্রিম এবং হাত-পায়ে লোশন মেখে ঘুমানো উচিত। তাহলে শরীরেরময়শ্চরাইজার বজায় থাকে। এতে করে শীতকালেও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।
  • শীতকালে আমরা অতিরিক্ত গরম পানি ব্যবহার করি কিন্তু গরম পানি আমাদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। এজন্য হালকা গরম পানি দিয়ে শীতকালে মুখ ধোয়া ও গোসল করা উচিত।
  • শীতকালে আমরা অনেকেই সানস্ক্রিম ব্যবহার করি না। যার ফলে আমাদের ত্বকে সূর্যের রশ্মি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। শীতকালে ত্বকের উজ্জ্বলতা ধরে রাখার জন্য বাইরে গেলে অবশ্যই সানস্ক্রিম ব্যবহার করা উচিত।
  • শীতকালে আবহাওয়ার কারণে ত্বক প্রচন্ড শুষ্ক হয়ে যায়। এজন্য আমাদের উচিত নিয়মিত গ্লিসারিন ব্যবহার করা। এতে করে ত্বকের রুক্ষভাব ও ত্বক ফাটা সমস্যা দূর হয়ে যাবে। গ্লিসারিনের সাথে সামান্য পানি মিশিয়ে ব্যবহার করলে চিটচিটে ভাব দূর হয়ে যায়।

শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির ঘরোয়া উপায়

শীতকালে আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা কমে যেতে শুরু করে। এই উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনার জন্য বা বৃদ্ধির জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে যা আমরা প্রয়োগ করতে পারি। শীতে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির ঘরোয়া উপায় গুলো নিচে আলোচনা করা হলো।

পাকা পেঁপেঃ ১/২ কাপ চটকানো পাকা পেঁপের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন এবং এই পেস্টটি আপনার মুখে ভালো করে লাগিয়ে আধা ঘন্টা রেখে মুখ ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। শীতকালে এভাবে সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার এই পেস্টটি ব্যবহার করলে আপনার ত্বকে আদ্রতা ও উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

কলা মধু ও টমেটো পেস্টঃ শীতকালে ত্বকের যত্নে কলা, মধু ও টমেটো দারুন কাজ করে। পাকা কলা ও পাকা টমেটো চটকিয়ে তার সাথে সামনে পরিমাণ মধু মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগিয়ে নিন এবং শুকিয়ে যাওয়ার পর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন। এতে করে দেখবেন আপনার মুখের উজ্জ্বলতা অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে।

এলোভেরা জেলঃ শীতকালে যত্নে এলোভেরা জেল অত্যন্ত কার্যকরী। কিছু পরিমাণ অ্যালোভেরা জেলের সাথে ১ চা চামচ নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি তৈরি হলে তা মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ভালোভাবে মুখ ধুয়ে ফেলুন। অ্যালোভেরা জেল ও নারকেল তেল শুষ্ক ত্বকে পরিশোধনের কাজ করে থাকে, যা ত্বক থেকে দূষিত পদার্থ বের করতে কার্যকরী ভূমিকা করে।

টক দইঃ শীতকালে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য টক দই অত্যন্ত কার্যকরী। টক দইয়ের সাথে কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মিশে নিন। এরপর এই মিশ্রণটি আপনার মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর মুখ ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে সপ্তাহে ২-৩ বার লাগালে ভালো ফল পাবেন।

ওটস ও দুধঃ সামান্য দুধের সাথে ওটস ভিজিয়ে নিন। এরপর এর মধ্যে সামান্য চন্দন গুড়া মিশিয়ে নিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগিয়ে শুকিয়ে নিন। এরপর সামান্য পানি ভরিয়ে মুখ মেসেজ করে তুলে ফেলুন এবং মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নিন। এতে করে আপনার ত্বকের শুষ্কতা দূর হয়ে যাবে।

গাজরঃ শীতকালে ত্বকের কমলতা ও উজ্জ্বলতা হারিয়ে যায়। এ সময় যদি গাজরের পেস্টের সাথে সামান্য চন্দন গুঁড়ো মিশিয়ে ত্বকে লাগান তাহলে ত্বকের উজ্জ্বলতা অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে।

জলপাই তেলঃ জলপাই তেলে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন ই ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ত্বককের ময়েশ্চারাইজ ধরে রেখে ত্বকের সতেজ রাখে। শীতকালে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধির জন্য জলপাই তেল বা অলিভ অয়েল ভালো কাজ করে।

শসাঃ শীতকালে ত্বক রুক্ষ ও খসখসে হয়ে যায়। ত্বকে রুক্ষ ও খসখসে ভাব দূর করার জন্য শসার রসের সাথে মুলতানি মাটি ও চন্দন গুড়ো মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্টটি আপনার মুখে, হাতে ও পায়ের ত্বকে ১০ মিনিটের মত লাগিয়ে রাখুন এবং ১০ মিনিট পর পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে দেখবেন আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

নারিকেল তেলঃ শীতকালে কমবেশি সকলেরই ত্বক ফেটে যায়। এই ফাটা ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে নারিকেল তেল ব্যবহার করলে উপকার পাবেন। প্রতিদিন গোসলের আগে নারিকেল তেল দিয়ে আপনার ত্বক মেসেজ করুন। ত্বকে নারিকেল তেল মেসেজ করলে ময়েশ্চারাইজর লাগানোর প্রয়োজন পড়বে না।

বেসন ও দুধঃ বেসনের সাথে সামান্য পরিমাণ দুধ মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্টটি আপনার ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। যখন শুকিয়ে উঠবে তখন সামান্য পানি দিয়ে মেসেজ করুন এবং ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে বেসন ও দুধের মিশ্রিত পেস্টটি সপ্তাহে ২-৩ ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি পাবে।

শীতে কি খেলে ত্বকের রং উজ্জল হয়

কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো খেলে ত্বকের রং ফর্সা হয় এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়। এ সকল খাবার যদি আমরা আমাদের খাবারের তালিকায় রাখি এবং নিয়মিত যদি আমরা তা খাই তাহলে আমাদের ত্বকের লাবণ্যতা বৃদ্ধি পাবে। কি খেলে গায়ের রং উজ্জল হয় সে সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

গাজরঃ গাজরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ যা আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে এবং আমাদের স্কিনকে সুরক্ষা দেয়। এছাড়া গাজরে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন। যা ত্বকের টিস্যু মেরামত করে এবং ক্ষতিকর রশি থেকে রক্ষা করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এজন্য নিয়মিত গাজর খেলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

পেঁপেঃ পেঁপে ত্বকের লাবণ্যতা বাড়িয়ে তোলে এবং ত্বক সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। পেঁপেতে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন উপাদান রয়েছে যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। পেঁপে খেলে নানা ধরনের অসুখ-বিসুখ হয় না যার কারণে ত্বক তার লাবণ্যতা ধরে রাখতে পারে।

টমেটোঃ টমেটোতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম ও ভিটামিন-সি যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। টমেটোতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের বিভিন্ন দাগ, বুলিরেখা এবং শুষ্কতা দূর করে ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি করে।

কলাঃ কলা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। কলাতে থাকা বিভিন্ন উপাদান আমাদের শরীরের পুষ্টি যুগিয়ে, ত্বকের লাবণ্যতা বৃদ্ধি করে। এজন্য আমাদের সকলের উচিত প্রতিদিন নিয়মিত পাকা কলা খাওয়া।

পানিঃ বেশিবেশি পানি পান করা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি। বেশি পানি পান করলে আমাদের শরীরের সকল সমস্যা দূর হয়ে যায়। এর ফলে আমাদের ত্বকে নানা ধরনের সমস্যা হওয়া থেকে রক্ষা পেতে পারি। তাই আমাদের শরীর ও ত্বককে সুস্থ রাখার জন্য বেশি করে পানি পান করা উচিত।

গ্রিন-টিঃ গ্রিন টি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। গ্রিন-টি খেলে আমরা নানা ধরনের অসুখ-বিসুখ থেকে রক্ষা পেতে পারি। গ্রিন-টি তে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, এনজাইম, অ্যামিনো এসিড, ভিটামিন-বি সহ আরো অনেক ধরনের উপাদান। আমাদের শরীরে জমে থাকা টক্সিন বের করে ত্বকের ভিতরে উজ্জলতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে গ্রিন টি।

ফাইবার যুক্ত খাবারঃ ফাইবার যুক্ত খাবার নিয়মিত খেলে আমাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের মত সমস্যা থাকবে না। যার ফলে আমাদের ত্বকে কোন ধরনের সমস্যার সৃষ্টির সম্ভাবনা থাকবে না। এজন্য আমাদের প্রতিদিন ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত। যেমন-বিভিন্ন ধরনের শাক, মটরশুঁটি, কাঁচা পেঁপে, লাউ ইত্যাদি ফাইবার যুক্ত খাবার।

ওমেগা-৩ঃ মাছের রয়েছে ওমেগা-৩ বা ফ্যাটি এসিড। মাছের মধ্যে যে চর্বি রয়েছে তা আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। এ চর্বি আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এজন্য আমাদের প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের মাছ খাওয়া উচিত।

শীতে ত্বকের জন্য কোন ক্রিম ভালো

শীতকালে সকলেরই মুখের ত্বক শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যায়। এই শুষ্ক ও রুক্ষ ত্বক ভালো রাখার জন্য কিছু ক্রিম রয়েছে যা ব্যবহার করলে মুখের ত্বকের ময়েশ্চারাইজ বজায় থাকে। নিচে শীতে ত্বকের জন্য কিছু ভালো ক্রিমের নাম উল্লেখ করা হলো।

  • Seaweed Day Cream
  • Nivea Soft Jar Moisturising Cream
  • Himalaya Herbal Clean Complexion
  • Bella Vita Papayablem Anti Blemish
  • Lotus Herbals Nutranite Night Cream
  • Plum E Luminence Deep Moisturizing
  • Skin Cafe Pure & Nature Aloe Vera gel 98%
  • The Body Shop Seaweed Mattifying Day Cream
  • Pond's Dry Skin CreamLotus Herbals Nutranite Night Cream

শীতের ভালো বডি লোশন

শীতকালে মুখের ত্বকের সাথে শরীরের ত্বকও রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায়। শরীরের চামড়া ভালো রাখার জন্য কিছু ভালো বডি লোশন রয়েছে যা ব্যবহার করলে শরীরের ত্বক ভালো থাকে। নিচে শীতে ব্যবহারের ভালো কিছু বডি লোশন এর নাম তুলে ধরা হলো।

  • Cetaphil Moisturizing Lotion
  • Nivea Happy Time Body Lotion
  • Dove Supple Bounce Body Lotion
  • Olay Quench Ultra Moisture Lotion
  • Lakme Peach Milk Moisturizer Lotion
  • Simple Kind to Skin Hydrating Light Moisturiser
  • Clinique Dramatically Different Moisturizing Gel
  • Rajkonna Brightening Body Lotion Super Moisture
  • Rajkonna Brightening Body Lotion Super Radiant
  • Vaseline Intensive Care Deep Moisture Body Lotion

শেষ কথা

উপরে আলোচনা থেকে আমরা জানতে পারলাম এই শীতকালে কিভাবে আমরা আমাদের ত্বকের যত্ন নিব। সব ঋতুতেই ত্বকের যত্ন নেওয়া জরুরী তবে শীতকালে ত্বকের ময়েশ্চারাইজ কমে যায়, যার কারণে এই ঋতুতে ত্বকের প্রতি একটু বেশি যত্নশীল হওয়া উচিত।

পরিশেষে আমি এটাই বলব যে, আপনাদের যদি এই আর্টিকেলটি পড়ে ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই শেয়ার করে দিবেন এবং এ ধরনের আরও আর্টিকেল পেতে সাথেই থাকবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

AN Heaven এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url