মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত তা জেনে নিন

নার্ভের রোগের লক্ষণ ও প্রতিকারমাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত তা আপনারা অনেকেই জানতে ইচ্ছুক। আসুন তাহলে এ সম্পর্কে আমরা আজকে বিস্তারিত জেনে নেই। প্রায় ৭০ থেকে ৮০ ভাগ মানুষই মাথার ব্যথার সমস্যায় ভুগে থাকে। তাই মাথা ব্যথার হওয়ার কারণগুলো আমাদের সকলের জানা দরকার এবং এর সাথে মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত তাও জেনে রাখা দরকার। তাহলে আমরা মাথা ব্যথা হলে এর দ্রুত চিকিৎসা শুরু করতে পারব। আজকে আমি আমার এই পোস্টে মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত

তাই আপনারা মাথাব্যথা দূর করার উপায় গুলো জানতে আমার এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আমি আশা রাখি যে, এই পোস্টটি পড়লে আপনারা আপনাদের মাথা ব্যথা দূর করার উপায় গুলো ভালোভাবে জেনে নিতে পারবেন।

পোস্ট সূচিপত্রঃমাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত তা জেনে নিন

ভূমিকা

মাথা ব্যথা একটি খুবই কমন রোগ যা আমাদের অনেক কষ্ট ও যন্ত্রণা দেয়। মাথা ব্যথা হলে কোন কাজ করতে ভালো লাগেনা। মাথা ব্যথার বিভিন্ন ধরণ রয়েছে, মাথাব্যথা হওয়ার অনেক কারণও রয়েছে এবং এ মাথাব্যথা দূর করার অনেক গুলো উপায়ও হয়েছে। আমাদের এ সকল বিষয় সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। কেননা যে কোন সময় আমাদের মাথা ব্যথার সমস্যা দেখা দিতে পারে। আসুন আমরা মাথা ব্যথার সকল ধরনের তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই।

মাথা ব্যথা কত প্রকার

আমাদের সকলেরই কমবেশি মাথা ব্যথার সমস্যা রয়েছে। মাথা ব্যথার বিভিন্ন প্রকারভেদ রয়েছে অর্থাৎ একেক জনের মাথা ব্যথা একেক রকম হয়ে থাকে। মাথা ব্যথা কত প্রকার তার নিচে আলোচনা করা হল।

মাথায় একপাশে ব্যথাঃ অনেকের মাথার একপাশে ব্যাথা করে থাকে। এ সময় মাথার একপাশে প্রচন্ড ব্যথা করে, রগ টেনে ধরে এবং ভিতরে স্পন্দন অনুভূত হয়। এই মাথা ব্যথাকে সাধারণত মাইগ্রেনের ব্যথা বলা হয়ে থাকে। মাইগ্রেনের এই ব্যথা খুবই যন্ত্রণাদায়ক ও দুর্বিসহ। এই ব্যথা হলে শব্দ ও আলো একেবারেই সহ্য করা যায় না। এই মাথা ব্যথা ১-৩ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। সাধারণত এই ব্যথা হলে ঔষধ না খেলে ভালো হয় না। মাইগ্রেনের সমস্যা সাধারণত মেয়েদের বেশি হয়ে থাকে।

মাথার উপরে ব্যথাঃ অনেক ক্ষেত্রে মাথা ব্যথা উপরের অংশে হয়ে থাকে। এ ধরনের মাথা ব্যথা প্রায় সময়ই হয়ে থাকে। মাথার উপরের ব্যথা সাধারণত মাইগ্রেনের সমস্যা থাকলেও হয়ে থাকে। এই ব্যথা হলে মাথার উপরে দিকে গরম হয়ে যায় এবং গরম ভাব বের হয়। এ ব্যথা হলে মাথার ভিতরে স্পন্দন অনুভূত হয়। এ ব্যথাও খুব কষ্ট ও যন্ত্রণাদায়ক যা অনেক সময় সহজে ভালো হতে চায় না।

আরও পড়ুনঃ দাঁতের মাড়ি ফোলা ও ব্যথা কমানোর উপায়

মাথার পিছনে ব্যথাঃ অনেকের আবার মাথার পিছনে প্রচণ্ড ব্যথা করে। মাথার পিছনে ব্যথা হলে ঘাড়ের রোগগুলো সব টেনে ধরে। ঘাড় ও মাথার পিছনে অংশ প্রচন্ড ব্যথা করতে থাকে। অনেক সময় গ্যাসের কারণেও ঘাড় ও মাথার পিছনে অংশ টেনে ধরে এবং ব্যথা করে।

মাথার চারদিক জুড়ে ব্যথাঃ অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপের কারণে অনেক সময় মাথার চারদিক অর্থাৎ পুরো মাথায় ব্যথা হওয়া শুরু করে। অনেক সময় অল্প সময়ের মধ্যেও এ ধরনের মাথাব্যথা ভালো হয়ে যায়। বিশ্রাম ও টেনশন মুক্ত থাকলে এই মাথাব্যথা খুব দ্রুতই সেরে ওঠে।

মুখমন্ডলে ব্যথাঃ অনেক সময় চোখ ও মুখমণ্ডলে অনেক ব্যথা অনুভূত হয়। এ ধরনের ব্যথাকে সাইনাস হেডেক বলা হয়ে থাকে। সাধারণত ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশনের কারণে এ ধরনের ব্যথা হয়ে থাকে। চোখের কোন সমস্যা থেকে থাকলে এই ধরনের ব্যথার আবির্ভাব ঘটে।

চোখের পিছনে ব্যথাঃ চোখের কোন সমস্যা থাকলে বা চোখে এলার্জি থাকলে চোখের পেছনে ব্যথা করে থাকে। অনেকক্ষণ ধরে মোবাইল, কম্পিউটার, টেলিভিশন, বই ইত্যাদির দিকে তাকিয়ে থাকলে চোখে চাপ পড়ে। যার ফলে চোখের পিছনে প্রচন্ড ব্যথা করে। এরকম সমস্যা হলে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকা উচিত নয়, কিছুক্ষণ পরপর চোখ কয়েক মিনিটের জন্য বন্ধ করা উচিত। এতে করে চোখের ব্যথা অনেকটাই দূর হয়ে যাবে।

মাথা ব্যথা হওয়ার কারণ

মাথা ব্যথা একটি সাধারণ সমস্যা যা কমবেশি সকলেরই হয়ে থাক। মাথাব্যথা একটি যন্ত্রণাদায়ক ও অস্বস্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। আমাদের মাথা ব্যথা বিভিন্ন কারণে হতে পারে। মাথা ব্যথার হওয়ার কারণগুলো নিজে তুলে ধরা হলো।

  • ঘুম কম হওয়ার কারণে মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • অতিরিক্ত পরিশ্রম করলে মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • ঠান্ডা ও গরম আবহাওয়ার কারণে মাথাব্যথা হয়ে থাকে।
  • অধিক পরিমাণে অ্যালকোহল সেবন করলে মাথা ব্যাথা হয়।
  • মাথার কোনো সমস্যা থেকে থাকলে মাথা ব্যথা হয়ে থাকে।
  • যাদের চোখের সমস্যা রয়েছে তাদেরও মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • মানসিক চাপ বা দুশ্চিন্তার মধ্যে থাকলে মাথা ব্যথা হয়।
  • অনেক ক্ষেত্রে মেয়েদের পিরিয়ড হলে মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • অতিরিক্ত কোলাহল ও আলোর কারণে মাথাব্যথা হয়ে থাকে।
  • ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্ন দেখলে ব্রেনে চাপ পড়ে, যার কারণে মাথাব্যথা হতে পারে।
  • ঘুমন্ত অবস্থায় হঠাৎ করে জেগে উঠলে মাথাব্যথা হতে পারে।
  • অতিরিক্ত উত্তেজনা ও রাগের কারণেও অনেক সময় মাথা ব্যথা হয়।
  • যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা আছে তাদের প্রায়সময়ই মাথাব্যথা হয়ে থাকে।
  • অতিরিক্ত সর্দি, কাশি ও জ্বর হলে প্রচন্ড মাথা ব্যথা করে।
  • অতিরিক্ত মোবাইল, টেলিভিশন, কম্পিউটার ইত্যাদি দেখলে মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • গ্যাসের কারণে অনেক সময় মাথাব্যথা হয়ে থাকে।
  • মেয়েদের ক্ষেত্রে চুল অনেকক্ষণ ভেজা অবস্থায় থাকলে মাথা ব্যথা হয়।

মাথা ব্যাথা রোগের লক্ষণ

কম বেশি আমাদের সকলেরই মাথাব্যথা হয়ে থাকে। মাথাব্যথা কারো কম কারো আবার অনেক বেশি হতে পারে। মাথা ব্যাথা রোগের অনেকগুলো লক্ষণ দেখা যায়। মাথা ব্যাথা রোগের লক্ষণগুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

  • মাথার এক পাশ, মাথার উপরের দিকে এবং মাথার পিছনে দিকে প্রচন্ড ব্যথা করে।
  • অনেকের আবার গোটা মাথা ব্যথা করে থাকে।
  • মাথা ব্যথা ১-৩ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়ে থাকে।
  • মাথার রোগগুলো প্রচন্ড টেনে ধরে।
  • মাথা ব্যথা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকে।
  • মাথা ব্যাথা সাথে বমি ভাব বা বমি হতে পারে।
  • মাথা ব্যথা হলে পেট প্রচন্ড কামড়ানো শুরু করে।
  • অতিরিক্ত আলো ও শব্দ সহ্য করার ক্ষমতা থাকে না।
  • মাথা ব্যথার সাথে প্রচন্ড চোখ জ্বালাপোড়া ও ব্যথা করা শুরু হয়।
  • এ সময় শব্দহীন ও অন্ধকার ঘরে শুয়ে থাকলে মাথা ব্যথা কিছুটা কম মনে হয়।

মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত

আমরা জানলাম যে মাথা ব্যথা অনেক কারণে হতে পারে। মাথা ব্যথা হলে আমাদের কি করা উচিত তা সম্পর্কেও আমাদের ধারণা রাখা জরুরী। মাথাব্যথা দূর করার উপায় জানা থাকলে আমরা খুব সহজেই এ ধরনের যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারবো। তাই নিচে মাথা ব্যথা হলে কি করা উচিত আমাদের তা তুলে ধরা হলো।

  • সাধারণত ঘুম কমের কারণে আমাদের মাথা ব্যথা বেশি হয়ে থাকে, তাই মাথা দূর করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম দিতে হবে।
  • মাথা ব্যথা করলে কাজ করা থামিয়ে দিতে হবে এবং বিশ্রাম নিতে হবে।
  • মাথা ব্যথা হলে অতিরিক্ত ঠান্ডা বা গরম পরিবেশ এড়িয়ে চলুন।
  • মানসিক চাপ থেকে মাথা ব্যথা সৃষ্টি হয়, তাই মানসিক চাপ যতদূর সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে।
  • মাথা ব্যথা করলে কোলাহল ও অতিরিক্ত আলো এড়িয়ে চলুন, দেখবেন এতে করে মাথা ব্যথা অনেকটাই কমে গেছে।
  • মাথাব্যথা আরেকটি কারণ হলো অতিরিক্ত রাগ, এজন্য আপনার রাগকে সবসময় নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন।
  • অতিরিক্ত মোবাইল, টেলিভিশন, কম্পিউটার ইত্যাদি দেখলে মাথা ব্যথা হতে পারে। এজন্য এ সকল জিনিস কম দেখার চেষ্টা করুন।
  • মাথা ব্যথা করলে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। পানি মাথা ব্যথার সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।
  • মাথা ব্যথা করলে অ্যালকোহল জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • অনেক সময় গ্যাস করলে মাথা ব্যথা হতে পারে, এজন্য গ্যাস দূর করার চেষ্টা করুন।
  • মাথা ব্যথা করলে মাথা ও কপাল মেসেজ করিয়ে নিন, এতে করে অনেকটাই আরাম পাবেন।
  • অতিরিক্ত মাথা ব্যথা করলে ঘর অন্ধকার করে কিছুক্ষণ চুপচাপ শুয়ে থাকুন, এতে করে মাথা ব্যাথা অনেকটাই কমে যাবে।
  • অনেক সময় চুপচাপ একাকী বসে থাকলে মাথা ব্যথা হতে পারে, এজন্য একা বসে না থেকে কোন কাজ করুন বা শরীর চর্চা করুন।
  • খাওয়া-দাওয়ার অনিয়ম হলে অনেক সময় মাথা ব্যথা হতে পারে, এজন্য নিয়মিত খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন।

মাথা ব্যাথার ঘরোয়া ঔষধ

মাথা ব্যথা করলে সহজে তা ভালো হতে চায় না। এজন্য মাথাব্যথা ঘরোয়া কিছু ট্রিটমেন্ট রয়েছে যার মাধ্যমে মাথাব্যথা দূর করা সম্ভব। নিচে মাথা ব্যাথার ঘরোয়া ঔষধ বা চিকিৎসা পদ্ধতি তুলে ধরা হলো।

  • মাথা ব্যথা করলে চা-কফি ভালো কাজ করে। আপনার অতিরিক্ত মাথা ব্যথা হলে চায়ের সাথে আদা, লবঙ্গ, তেজপাতা, দারচিনি ও মধু মিশিয়ে খেতে পারেন।
  • অ্যাসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে মাথা ও কপাল মেসেজ করুন এতে করে মাথা যন্ত্রণা অনেকটাই কমে যাবে।
  • কিছু পরিমাণ লবঙ্গ গরম করে একটি কাপড়ের মধ্যে নিন। এরপর এক মিনিট ধরে এর ঘ্রাণ নিন এতে করে দেখবেন মাথা ব্যথা কমে গেছে।
  • আপেলের সাথে সামান্য পরিমাণ লবণ মিশিয়ে খেলে মাথাব্যথা দূর হয়ে যাবে।
  • মাথা ব্যথা করলে এক টুকরো আদা ১ মিনিট ধরে চিবিয়ে দেখুন মাথা ব্যথা অনেকটাই সেরে যাবে।
  • মাথা ব্যথার জন্য ম্যাগনেসিয়াম যুক্ত খাবার একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘরোয়া ঔষধ। মাথা ব্যথা করলে বেশি করে ম্যাগনেসিয়ামযুক্ত খাবার খান।
  • পানি মাথা ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ, মাথা ব্যথা করলে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।
  • মাথা ব্যথা করলে হালকা গরম তেল দিয়ে মাথা মেসেজ করে নিন, এতে করে মাথা ব্যথা অনেকটাই কমে যাবে।
  • কুসুম গরম পানি মাথা ব্যথা সারাতে ভালো কাজ করে। আপনার মাথা ব্যথা করলে হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। এতে করে মাথা ব্যথা অনেকটাই ভালো হয়ে যাবে।
  • মাথা ব্যথা করলে ব্যথা নাশক মলম দিয়ে কপাল মেসেজ করিয়ে নিন, এতে করে অনেকটাই আরাম পাওয়া যাবে।

মাথা ব্যাথার ঔষধের নাম

অতিরিক্ত মাথা ব্যথা হলে ঔষধ না খেলে কমেনা। অনেকেই আছেন যাদের মাথা ব্যথা হলে করুণা কোন ওষুধ খেতেই হয়। কিছু বেশি ব্যবহৃত মাথা ব্যাথার ঔষধের নাম নাম নিচে দেওয়া হল।

হালকা মাথা ব্যথার ঔষধের নাম
  • Migranil - 1.5mg
  • Antigrain TS - 1.5mg
  • Avidro - 0.5mg/1.5mg
  • D Fen - 0.5mg/1.5mg
  • Dmigrain - 1.5mg
  • Migranex - 1.5mg
  • Pifen - 1.5mg
  • Pizo A - 1.5mg
  • Pizofen TS - 1.5mg
  • Zeromig - 0.5mg/1.5mg
  • Zofen TS - 1.5mg

ডোজঃ উপরের ঔষধগুলো মাথা ব্যথা বা মাইগ্রেনের ব্যথার জন্য। যাদের মাইগ্রেনের ব্যথা রয়েছে তারা নিয়মিত প্রতিদিন রাত্রে ১ টা করে খেতে পারবে। এই ওষুধগুলো গর্ভাবস্থায় খাওয়া যেতে পারে। তবে অবশ্যই খাওয়ার পূর্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

বিঃদ্রঃ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না।

অতিরিক্ত মাথা ব্যথা ঔষধের নাম
  • Tufnil - 200mg
  • Achnil - 200mg
  • Anilic - 200mg
  • Arain - 200mg
  • Migesic - 200mg
  • Migratol - 200mg
  • Namitol - 200mg
  • Migret200 - 200mg
  • Bristol Tufin - 200mg
  • Tolfem - 200mg
  • Tolfort - 200mg
  • Tolmic - 200mg
  • Tufmig - 200mg
  • Lograin - 200mg

ডোজঃ উপরের ঔষধগুলো হঠাৎ অতিরিক্ত মাইগ্রেনের ব্যথার জন্য। যখন মাথা ব্যথা হবে শুধু তখনই ১ টি করে খেতে হবে। এ ঔষধগুলো খেলে ১-২ ঘন্টার মধ্যে মাথা ব্যথা দূর হয়ে যাবে। এই ঔষধগুলো গর্ভাবস্থায় খাওয়া যাবে না।

বিঃদ্রঃ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ খাবেন না।

শেষ কথা

আলোচনা থেকে আমরা সবাই জানতে পারলাম যে মাথা ব্যথা কি কারনে হয়ে থাকে এবং মাথা ব্যাথা হলে কি করা উচিত। আমাদের যদি মাথা ব্যথা হয় তাহলে অবশ্যই এ সকল উপায়গুলো প্রয়োগের মাধ্যমে মাথা ব্যথা দূর করতে পারবো। আর যদি অতিরিক্ত মাথা ব্যথা হতে থাকে এবং সহজে ভালো হতে না চায় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে এবং মাথা ব্যাথার কারণ খুঁজে বের করার চেষ্টা করতে হবে।

পরিশেষে আমি এটাই বলব যে আমার এই পোস্টটি যদি আপনাদের পড়ে ভালো লেগে থাকে এবং যদি কোন উপকারে এসে থাকে তাহলে অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করে দিবেন এবং অন্যকে জানার সুযোগ করে দিবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

AN Heaven এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url