দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় জেনে নিন

ডায়রিয়া হলে কি খাওয়া উচিতআমাদের অনেকেরই দাঁতের শিরশির ভাব হয়ে থাকে। তাই দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় গুলো সম্পর্কে আমাদের জেনে রাখা উচিত। সেই সাথে কোন ভিটামিনের অভাবে দাঁত শিরশির করে সেটিও জানা উচিত। সাধারণত দাঁতের ক্ষয়ের কারণে দাঁতে শিরশির ভাব সৃষ্টি হয়। আজকে আমি আমার এই পোস্টে, দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়

তাই যাদের দাঁতের শিরশিরের সমস্যা রয়েছে, তারা আমার এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আমি আশা করছি যে, আপনারা এই পোস্টটি পড়লে দাঁতের সমস্যার কারণ ও তা থেকে মুক্তি উপায় সম্পর্কে অনেক তথ্য জানতে পারবেন।

পোস্ট সূচিপত্রঃদাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় জেনে নিন 

ভূমিকা

আমরা প্রায় সময়ই দাঁতের কোন না কোন সমস্যায় ভুগে থাকি। বর্তমান সময়ে দাঁতের সমস্যাগুলোর মধ্যে দাঁত শিরশির করা একটি কমন সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বয়স বাড়ার সাথে সাথেই দাঁতের শিরশির ভাব বৃদ্ধি পেতে থাকে। ঠান্ডা,গরম ও টক জাতীয় যাই খাওয়া হোক না কেন দাঁতে শিরশির ভাব অনুভূতি হতে থাকে। এ সমস্যার কারণে খাবার খেতে অনেকটাই সমস্যা হয়। সাধারণত দাঁতের শিরশির ভাব দাঁতের যত্নের অভাবে হয়ে থাকে। তবে দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়গুলো প্রয়োগের মাধ্যমে দাঁতের শিরশির ভাব কিছুটা হলেও কমিয়ে আনা সম্ভব।

দাঁত শিরশির করার কারণ

কমবেশি আমাদের সকলেরই প্রায় সময়ই ঠান্ডা বা গরম কিছু খেলে দাঁত শিরশির করে ওঠে।সাধারণত
অনেক কারণেই দাঁত শিরশির করে থাকে। নিচে দাঁত শিরশির করার কারণ গুলো তুলে ধরা হলো।

  • দাঁতে বা দাঁতের মাড়িতে শিরশির অনুভূতি হওয়ার অন্যতম কারণ হলো দাঁতের ক্ষয়। দাঁতের ক্ষয় হয়ে গেলে দাঁতের গোড়ায় শিরশির অনুভূতি হয়।
  • দাঁতের উপরের এনামেল উঠে গেলে দাঁত দুর্বল হয়ে যায়। যার ফলে তাতে শিশির অনুভূতি হয়।
  • যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের দাঁত শিরশির সমস্যা বেশি হয়ে থাকে। কারণ ডায়াবেটিস দাঁতকে ক্ষতিগ্রস্ত বেশি করে।
  • কোনো কারণে দাঁতে আঘাত লাগলে বা দাঁত ভেঙে গেলে সেই দাঁতে শিরশির ভাব সৃষ্টি হয়।
  • শক্ত ব্রাশ দিয়ে ব্রাশ করলে দাঁতের গোড়ায় আঘাত লেগে দাঁতের শিরশির সমস্যা সৃষ্টি হয়ে থাকে।
  • অতিরিক্ত টক জাতীয় বা অ্যাসিডিক খাদ্য বেশি করে গ্রহণ করলে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে দাঁতের শিরশির ভাব তৈরি হয়।
  • নিয়মিত দাঁত পরিষ্কার না করলে, দাঁতের ফাঁকে খাবার জমে দাঁতে এ ধরনের সমস্যা হতে পারে।
  • দাঁতে গর্ত থাকলে সে গর্ত দ্রুত ফিলিং না করলে সেই দাঁতে শিরশির অনুভূতি হয়ে থাকে।
  • বয়সজনিত কারণে দাঁতের এনামেল উঠে গিয়ে দাঁতের শিরশির সমস্যা হয়ে থাকে।
  • অনেক সময় আমরা দাঁত সাদা ঝকঝকে করার জন্য নানা ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করে থাকি, যার কারণে দাঁতের উপরে এনামেল উঠে যায় এবং দাঁতের শিরশির অনুভূতি শুরু হয়ে যায়।
  • অনেক সময় দাঁতের গোড়ায় ইনফেকশন হয়ে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়, যার ফলে দাঁতের গোড়া শিরশির করা শুরু করে।
  • অনেক সময় শক্ত কিছু খাওয়ার কারণে দাঁতে আঘাত লাগলে দাঁতের শিরশির ভাব হতে পারে।
  • ভিটামিন-সি এর অভাব হলে স্কার্ভি রোগ হয়। যার ফলে দাঁত দুর্বল হয়ে পড়ে এবং দাঁতের শিরশিরে অনুভূতি হতে পারে।
  • দাঁতে বা দাঁতের গোড়ায় অতিরিক্ত পাথর জমলে দাঁতে শিরশির অনুভূতি হয় হয়।
  • অতিরিক্ত চিনি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার খেলে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়, যার ফলে দাঁত শিরশির করা শুরু করে।
  • অনেকের আবার দাঁতের সাথে দাঁত ঘষার বদ অভ্যাস রয়েছে, এরকম করে দাঁত ঘষলে দাঁতের ক্ষয় হয়ে শিরশির অনুভূতি সৃষ্টি হয়।
  • আমরা অনেকেই অনেকক্ষণ ধরে দাঁত ব্রাশ করে থাকি। অতিরিক্ত সময় ধরে দাঁত ব্রাশ করলে দাঁতের উপরের প্রলেপ ক্ষয়ে গিয়ে দাঁতের শিরশির ভাব সৃষ্টি হয়।
  • দাঁতের মাজন বা কয়লা দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করলে দাঁত সাদা হয় কিন্তু এভাবে দাঁত পরিষ্কার করলে দাঁতের উপরে এনামেল উঠে গিয়ে দাঁতে শিরশির ভাব হতে পারে।

কোন ভিটামিনের অভাবে দাঁত শিরশির করে

দাঁত শিরশির ভাব হওয়ার পেছনে কিছু ভিটামিনের অভাব হয়ে থাকে। এমন কিছু ভিটামিন ও মিনারেল রয়েছে যেগুলো দাঁতের সুস্থতার জন্য খুব জরুরী। আমাদের শরীরে ভিটামিনের অভাব হলে দাঁতের নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। যার মধ্যে দাঁতের শিরশির ভাব অন্যতম। কোন কোন ভিটামিনের অভাবে দাঁতের শিরশির করে তা নিচে তুলে ধরা হল।

ভিটামিন-এঃ ভিটামিন-এ আমাদের দাঁতের মাড়ির স্বাস্থ্যকে সুস্থ-সবল এবং মুখের লালার প্রবাহকে ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আমাদের শরীরে যদি ভিটামিন-এ এর অভাব হয় তাহলে দাঁতের শিরশির ভাবের সৃষ্টি হতে পারে। যেমন- গাজর, মিষ্টি কুমড়া, লাল শাক, টমেটো, মিষ্টি আলু, আম ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ রয়েছে।

ভিটামিন-সিঃ ভিটামিন-সি আমাদের দাঁত ও দাঁতের মাড়িকে মজবুত করে এবং মুখে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ সৃষ্টি হতে দেয় না। ভিটামিন-সি এর অভাব হলে আমাদের মুখে স্কার্ভি রোগ হয়। যার ফলে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং দাঁতের শিরশির ভাব সৃষ্টি হয়।যেমন- কমলা, মালটা, বাতাবি লেবু, কামরাঙ্গা, লেবু, আমড়া, জলপাই, আমলকি, আঙ্গুর ইত্যাদি ফলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে।

আরও পড়ুনঃ  দাঁতের পাথর দূর করার উপায়

ভিটামিন-ডিঃ ভিটামিন-ডি এর অভাবের কারণেও দাঁত শিরশির করে থাকে। ভিটামিন-ডি আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সাহায্য করে। যার ফলে আমাদের দাঁত ও দাঁতের মাড়ি সুস্থ-সবল থাকে। সূর্যের আলো ভিটামিন-ডি এর সবচেয়ে ভালো উৎস। এছাড়া ডিম, দুধ, মাছ, মাংস ইত্যাদি থেকে ভিটামিন-ডি পাওয়া যায়।

ভিটামিন-কেঃ ভিটামিন-কে আমাদের শরীরে রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। ভিটামিন-কে এর অভাব হলে দাঁতের মাড়ি দিয়ে রক্তপাত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। যার ফলে দাঁতের শিরশির ভাব সৃষ্টি হতে পারে। সয়াবিন, সবুজ শাকসবজি ইত্যাদিতে ভিটামিন-কে ভালো পরিমানে পাওয়া যায়।

ভিটামিন-বিঃ আমাদের মুখে, জিহ্বায় ও দাঁতের গোড়ায় ঘা হলে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যার ফলে দাঁতে শিরশির অনুভূতি হতে পারে। ভিটামিন-বি মুখের, জিহ্বার ও দাঁতের গোড়ার ঘা থেকে আমাদের রক্ষা করে থাকে। সবুজ শাকসবজি, মটরশুঁটি, সিম, মাংস, মাছ, দুধ, দই ইত্যাদিতে পরিমাণে ভিটামিন-বি রয়েছে।

দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়

দাঁতের উপরে এনামেল নামক একপ্রকার আস্তরণ থাকে যা দাঁতের ক্ষয় রোধ করে দাঁতের শিরশির ভাব হতে দেয় না। এই এনামেল উপাদানটি ক্ষয় হয়ে গেলে দাঁতের ভিতরে থাকা স্নায়ুগুলো উন্মুক্ত হয়ে যায়। এর ফলে ঠান্ডা-গরম জাতীয় খাবার ও পানীয় পান করলে সেই স্নাইগুলোর সংস্পর্শে এলে দাঁত শিরশির করে ওঠে। একে চিকিৎসকের ভাষায় সেনসিটিভি বলা হয়ে থাকে। দাঁতের এই শিরশির ভাব থেকে মুক্তির অনেকগুলো উপায় রয়েছে। নিচে দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায়গুলো আলোচনা করা হলো।

  • দাঁতের শিরশির ভাব দূর করতে প্রতিদিন মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন।
  • এক গ্লাস হালকা গরম পানির মধ্যে সামান্য লবন মিশিয়ে নিয়মিত কুলকুচি করুন।
  • গ্রিন টি মাউথওয়াশ হিসেবে ভালো কাজ করে। গ্রিন টি পানিতে ফুটিয়ে নিন এবং সেই পানি হালকা ঠান্ডা করে কুলিকুচি করুন।
  • ভ্যানিলা এক্সট্র্যাক্ট তুলার সাথে সামান্য ভরিয়ে দাঁতের মাড়িতে কিছুক্ষণ লাগিয়ে রাখুন এবং এরপর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
  • দাঁত শিরশির করলে রসুনের কয়েকটি কোয়া থেতলিয়ে তার মধ্যে সামান্য কয়েক ফোঁটা পানি ও লবণ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এরপর এই পেস্ট দাঁতের গোড়ায় কিছুক্ষণ লাগিয়ে রাখুন। এতে করে দেখবেন আপনার দাঁতের শিরশির ভাব অনেকটাই দূর হয়ে গেছে।
  • দাঁতের শিরশির দূর করতে লেবুর রসের সাথে সামান্য লবণ মিশিয়ে তা দিয়ে দাঁত মাজুন, এতে করে আপনার দাঁতে শিরশির করার সমস্যা দূর হয়ে যাবে।
  • এছাড়া ১ টেবিল চামচ হলুদ গুড়ার সাথে ১/২ চা চামচ সরষের তেল ও ১/২ চা চামচ লবণ মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি শিরশির করা দাঁতের গোড়ায় লাগিয়ে রাখলে অনেকটাই আরাম পাবেন।
  • বাজারে বিভিন্ন ধরনের টুথপেস্ট পাওয়া যায় যা দাঁতের শিরশির ভাব দূর করতে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করলে এবং দাঁত পরিষ্কার রাখলে দাঁতের শিরশিরি ভাব হয় না।
  • দাঁতের যদি শিরশির ভাব বেশি হয় তাহলে নিয়মিত দাঁত স্কেলিং করতে হবে। তাহলে দাঁতে পাথর জমবে না, যার ফলে দাঁত ভালো থাকবে।
  • নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করতে হবে। এতে করে দাঁতে কোন ধরনের ইনফেকশন হওয়ার ভয় থাকবে না। যার ফলে দাঁতের শিরশিররে ভাব প্রতিরোধ করা যাবে।
  • যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের এই সমস্যাটি বেশি হয়। এজন্য সব সময় ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ রাখার চেষ্টা করতে হবে।
  • এছাড়া ঠান্ডা জাতীয় খাবার বা পানীয় পান করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এতে করে দাঁতের শিরশিরি ভাব দূর হবে।
  • দাঁত ব্রাশ করার সময় হালকা করে ব্রাশ করতে হবে এতে করে দাঁতে চাপ পড়বে না। যার ফলে দাঁতের শিরশির হওয়া কমে যাবে।
  • পেয়ারার রস দাঁতের জন্য অনেক উপকারী। দাঁত শিরশির করলে কয়েকটি কচি পেয়ারা পাতা রস করে তা দাঁতের গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন।
  • অতিরিক্ত চিনি ও চিনিযুক্ত পানীয় ও খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। অতিরিক্ত মিষ্টি খাবার দাঁতের এনামেলকে নষ্ট করে ফেলে যার ফলে দাঁতের শিরশিরি ভাব শুরু হয়ে যায়।

কি খেলে দাঁতের মাড়ি শক্ত হয়

দাঁত আমাদের অমূল্য সম্পদ তাই দাঁতের যথাযথ যত্ন নিতে হবে। দাঁতের মাড়িকে শক্ত রাখার জন্য কিছু খাবার রয়েছে যা আমাদের খাদ্য তালিকায় নিয়মিত রাখা উচিত। কি খেলে দাঁতের মাড়ি শক্ত হয় নিম্নে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হল।

দুধ ও দুগ্ধজাত খাবারঃ দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার ক্যালসিয়ামে সমৃদ্ধ যা আমাদের দাঁতকে শক্ত রাখতে সহায়তা করে। দুধে আছে ক্যাসেইন যা মুখগহ্বরের ক্ষরীয়ভাব দূর করতে সাহায্য করে। দুধ, দই, পনির, ও দুধের তৈরি নানা ধরনের খাবার দাতের এনামেল মজবুত করে। দইয়ে রয়েছে প্রোবায়োটিক যা মুখ ও দাঁতের মাড়ি সুরক্ষিত রাখে।

পেঁয়াজ ও রসুনঃ পেঁয়াজ ও রসুন দাঁতের মাড়ি শক্ত করতে সহায়তা করে। এতে রয়েছে এন্টি-মাইক্রোবিয়াল যা মুখে গন্ধ দূর করে এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ থেকে দাঁতকে ভালো রাখে।

পানি পানঃ খাবার খাওয়ার পর প্রচুর পরিমাণ পানি খাওয়া প্রয়োজন। মুখের ভেতর যে খাদ্যকণা আটকে থাকে তা পানি পানের মাধ্যমে মুখের ভেতর থেকে দূর হয়ে যায় এবং কোন রোগ জীবাণু সংক্রমণে সম্ভাবনা থাকে না। এছাড়া খাওয়ার পর কুলিকুচির মাধ্যমে মুখ পরিষ্কার করা যেতে পারে।

কচ কচের সবজিঃ কচকচের সবজি খেলে দাঁত শক্ত হয়। এটি মুখের ব্যাকটেরিয়া দূর করে এবং মাড়ির দাঁত কে সুরক্ষিত রাখে। গাজর, ব্রুকলি, ফুলকপি, বাঁধাকপি, মরিচ ইত্যাদি খাবার খেলে দাঁতের মাড়ি শক্ত হয়।

ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবারঃ দাঁতের মাড়ি শক্ত রাখার জন্য নিয়মিত নানা ধরনের ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার আমাদের খাওয়া উচিত। ভিটামিন আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে আমাদের দাঁত ও দাঁতের মাড়িকে সুরক্ষা দেয়। যেমন ভিটামিন-এ, ভিটামিন-বি, ভিটামিন-সি, ভিটামিন-ডি, ভিটামিন-কে ইত্যাদি ভিটামিন যুক্ত খাবার আমাদের প্রতিদিন খাওয়া উচিত।

দাঁতের হলুদ দাগ দূর করার উপায়

বেশিরভাগ মানুষই দাঁতের হলুদ দাগ নিয়ে বেশ চিন্তিত থাকে। হলুদ দাঁত আমাদের মুখের সৌন্দর্য নষ্ট করে ফেলে। এই হলুদ দাঁতকে উজ্জ্বল সাদা করতে কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে আমরা হলুদ দাঁতকে সাদা ঝকঝকে করে ফেলতে পারি। দাঁতের হলুদ দাগ দূর করার উপায়গুলো নিচে তুলে ধরা হলো।

  • পাকা বা কাঁচা কলার খোসার সাদা দিক দিয়ে নিয়মিত দাঁত ঘষলে দাঁতের হলুদ আবরণ উঠে দাঁত সাদা হয়ে যাবে।
  • দাঁত পরিষ্কার করতে লবণ অনেক কার্যকরী। লবণের সাথে সামান্য সরিষার তেল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন। এই পেস্ট দিয়ে প্রতিদিন অন্তত একবার করে দাঁত ঘষে দেখুন, আপনার দাঁত সাদা ঝকঝক করবে।
  • দাঁতের জন্য তুলসী পাতা খুব উপকারী। কিছু সংখ্যক তুলসী পাতা শুকিয়ে সেগুলো গুঁড়ো করে নিন। গুঁড়ো করা তুলসী পাতার সাথে টুথপেস্ট মিশিয়ে নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করলে তাতে হলুদ দাগ একেবারেই চলে যাবে।
  • কমলালেবুর খোসা দাঁতের হলুদ দাগ দূর করতে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। মাঝেমধ্যে কমলার খোসা ব্যবহার করলে দাঁতের হলুদ দাগ অনেকটাই দূর হয়ে যাবে।
  • সপ্তাহে ১-২ বার বেকিং সোডা ও লেবুর রস মিশিয়ে ব্রাশ করলে আপনার দাঁতের হলুদ ভাব দূর হয়ে যাবে।
  • আপেল, গাজর, আখ, জোয়ান ইত্যাদি দাঁত পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে খুবই ভালো। এ সকল কচকচে ও শক্ত ফল আপনার দাঁতের জন্য প্রাকৃতিক টুথব্রাশ হিসেবে ভালো কাজ করবে।
  • স্ট্রবেরি পেস্ট করে তা দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁত সাদা ঝকঝক করবে।
  • গ্রিন টি-তে রয়েছে প্রচুর ফ্লুরাইড ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা দাঁতের হলুদ ভাব পড়তে দেয় না।
  • মাশরুমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পলিস্যাকারাইড যা দাঁতের ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে দাঁতে পাথর বা হলুদ দাগ হতে দেয় না।
  • দাঁতের হলুদ দাগ দূর করতে লেবুর রসের সাথে এক চিমটি লবণ মিশিয়ে তা দিয়ে দাঁত মাজুন, এতে করে আপনার দাঁতে হল দাগ দূর হয়ে দাঁত সাদা ঝকঝক করবে।

শেষ কথা

উপরের আলোচনা থেকে আমরা দাঁতের শিরশির হওয়ার কারণ ও দাঁত শিরশির থেকে মুক্তির ঘরোয়া উপায় গুলো জানলাম। দাঁত আমাদের অতি মূল্যবান সম্পদ তাই দাঁত খারাপ হওয়ার আগেই দাঁতের যত্ন নেওয়া উচিত। তাহলে আমাদের আর দাঁতের সমস্যায় ভুগতে হবে না। ছোট-বড় সকলেরই দাঁতের প্রতি যত্নশীল হওয়া অত্যন্ত জরুরি।

পরিশেষে আমি এটাই বলব যে আমার এই পোস্টটি আপনাদের কাছে ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই শেয়ার করে দিবেন এবং এ ধরনের আরও পোস্ট পেতে সাথেই থাকবেন। ধন্যবাদ সবাইকে। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

AN Heaven এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url